রাখি বন্ধন কবে ২০২২ | রাখী উৎসবের কারণ | রক্ষা বন্ধনের গান

রাখি বন্ধন কবে ২০২২ | রাখী উৎসবের কারণ | রক্ষা বন্ধনের গান

রাখি উৎসব বা রাখি বন্ধন বা রাখি পূর্ণিমা ভারতের জনপ্রিয় উৎসব গুলির মধ্যে একটি অন্যতম। এই উৎসব ভাই ও বোনের মধ্যে প্রীতিবন্ধন করে। হিন্দু,শিখ জৈন রা এই উৎসব পালন করে থাকে।

এই দিন দিদি বা বোনেরা তাদের ভাই বা দাদার হাতে রাখি নামে একটি পবিত্র পবিত্র সুতো বেঁধে দেয়।এটি ভাই বা দাদার প্রতি দিদি বা বোনের ভালোবাসা ও ভাইয়ের মঙ্গল কামনা এবং দিদি বা বোনকে আজীবন রক্ষা করার ভাই বা দাদার শপথের প্রতীক হিসাবে পরিগণিত।

রাখী উৎসব কেন পালন করা হয়?

হিন্দু পঞ্জিকা মতে শ্রাবণ মাসের পূর্ণিমা তিথিতে এই উৎসব পালন করা হয়। রাখি বন্ধন উৎসবের দিন দিদি বা বোনেরা তাদের ভাই বা দাদার হাতের কব্জিতে রাখি নামে একটি পবিত্র সুতো বেঁধে দেয়। পরিবর্তে ভাই বোনকে উপহার দেয় এবং সারা জীবন তাকে রক্ষা করার শপথ নেই।

রাখি বন্ধন কবে ২০২২ | রাখী উৎসবের কারণ | রক্ষা বন্ধনের গান

এরপর ভাই বোন পরস্পরকে শুভেচ্ছা বিনিময় করে।ভারতের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের ভাই বোন এই পবিত্র দিন জমিয়ে উৎযাপন করে।রাখি কেবলমাত্র একটি সুতো নয় রাখি পরানোর মাধ্যমে দিদি বা বোনেরা ভাইয়ের প্রতি ভালোবাসা জ্ঞাপন করে থাকে এবং ঈশ্বরের কাছে তাদের মঙ্গল প্রার্থনা করে থাকে। অপরদিকে ভাইয়েরা দিদি বা বোনের কাছে রাখি পড়ার সময় তাদের আজীবন রক্ষা করার শপথ নেই।

ভারতবর্ষে এই উৎসব সাধারণত শ্রাবণ মাসের পূর্ণিমার দিন পালন করা হয়। এজন্য অনেক সময় রাখি বন্ধন উৎসব কে রাখি পূর্ণিমাও বলা হয়ে থাকে। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ প্রতিরোধ করার জন্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এই উৎসব পালন করেছিলেন।

তিনি কলকাতা ঢাকা ও সিলেট থেকে হাজার হাজার হিন্দু ও মুসলিম ভাই বোনকে আহ্বান করেছিলেন এবং তাদের একতার প্রতীকস্বরুপ রাখি বন্ধন উৎসব পালন করার ডাক দিয়েছিলেন সে সময় দেশে ধর্মীয় ও অসহিষ্ণুতা চরম পর্যায়ে পৌঁছেছিল কিন্তু ১০০ বছরের বেশি সময় আগে হিন্দু ও মুসলিম এই দুই সম্প্রদায়ের মানুষ একে অপরের প্রতি ভ্রাতৃত্ব বজায় রাখার জন্য এই উৎসব পালন করেছিলেন।

উনিশ শতকে আমাদের বাংলায় জাতীয়তাবাদী আন্দোলন যখন চরম পর্যায়ে পৌঁছে ছিল তখন এই উৎসব পালন করা হয়েছিল। জাতীয়তাবাদী আন্দোলন কে দমন করার জন্য ব্রিটিশ সরকার সিদ্ধান্ত নেয় তারা বাংলাকে দুই ভাগে বিভক্ত করে দেবে।

ঠিক সেই কারণেই রবীন্দ্রনাথ সহ গোটা ভারতের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ এই বঙ্গভঙ্গের বিরোধিতা করেছিলেন ১৯০৫ সালের জুন মাসে লর্ড কার্জনের বঙ্গভঙ্গের সিদ্ধান্ত নেই এবং এই আইন ১৬ই অক্টোবর ১৯০৫ কার্যকরী হয়।


রাখীবন্ধনের সময়সূচিঃ-

এইবছর (বাংলা) ২৫ শে শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ও (ইংরেজি) ১১ ই আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ পালন করা হবে।

** রাখি বাঁধার শুভ মূহুর্তঃ—– হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী পূর্ণিমা তিথি ১১ ই আগস্ট সকাল ১০ টা ৩৮ মিনিটে শুরু হচ্ছে ও ১২ ই আগস্ট সকাল ৭ টা ০৫ মিনিটে শেষ হচ্ছে.

image_pdfDownload PDFimage_printPrint This Page

Leave a Comment